৪০তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে জাতীয় শ্রমিক লীগের আলোচনা মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত

৪০তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে জাতীয় শ্রমিক লীগের আলোচনা মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত

এইচ এম জাকির ঃ
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর সভাপতি, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা’র ৪০তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে জাতীয় শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির উদ্যোগে সোমবার বাদ জোহর ৯/বি, মতিঝিলস্থ জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগ অফিস প্রাঙ্গণে মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মিলাদ মাহফিল শেষে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শাহাদৎ বরণকারী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারবর্গের রুহের মাগফেরত এবং বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

দোয়া মাহ্ফিল শেষে জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগ কার্যালয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলাউদ্দিন মিয়া।

দোয়া অনুষ্ঠানে টেলিফোনে অংশগ্রহণ করেন জাতীয় শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর কুতুব আলম মান্নান। দোয়া ও আলোচনা সভায় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক লীগ এর সহ-সভাপতি এ্যাড. মোঃ হুমায়ুন কবির, মোঃ মহসিন ভূইয়া, মোঃ আসকার ইবনে শায়েখ খাজা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুলতান আহম্মদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আনিছুর রহমান, শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যান বিষয়ক সম্পাদক মোঃ লুৎফর রহমান, ট্রেড ইউনিয়ন সমন্বয় বিষয়ক সম্পাদক মোঃ ফিরোজ হোসাইন, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক গাজী আজিজুর রহমান, কার্যকরী সদস্য মোঃ মজিবুর রহমান, জাতীয় শ্রমিক লীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি মোঃ ইনসুর আলী, যুগ্ম সাধাণ সম্পাদক মোঃ ইব্রাহিম, উপস্থিত ছিলেন যুব শ্রমিক লীগের আহবায়ক আব্দুল হালিম, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গনি রাজা, সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন ফারুক আহমেদ, আনোয়ার হোসেন দিপু, যুব শ্রমিক লীগ নেতা এম এ এফ সুমন সহ  জাতীয় শ্রমিক লীগ ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ, বিভিন্ন বেসিক জাতীয় ইউনিয়ন ও বেসিক ইউনিয়ন, থানা ও ওয়ার্ড শাখার নেতৃবৃন্দ।
আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ক্ষমতা লোভী ঘাতকের দল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ধানমন্ডির ৩২ নাম্বার বাড়িতে নির্মমভাবে হত্যা করে। কিন্তু আল্লাহ্র অশেষ রহমতে বিদেশে থাকায় জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা এবং তাঁর ছোট বোন শেখ রেহেনা বেঁচে যান। খুনী জিয়ার সরকারের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৯৮১ সালের এই দিনে জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশে প্রত্যাবর্তন করেন। আল্লাহ্র ইচ্ছাতেই আজ জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায়, জনগণের কল্যানে কাজ করছেন। মেহনতি মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের বিকল্প নাই। তাই এই সরকারের ধারাবাহিকতা রক্ষা করার জন্য জাতীয় শ্রমিক লীগকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।
সভায় নেতৃবৃন্দ কোভিড- ১৯ এ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলার জন্য শ্রমজীবী মানুষের প্রতি আহবান  জানান।