মহার্ঘ ভাতা প্রদান ও নবম পে স্কেল এর মাধ্যমে ৮ দফা দাবি বাস্তবায়নের আবেদন ১১-২০ গ্রেডের কর্মচারীদের

মহার্ঘ ভাতা প্রদান ও নবম পে স্কেল এর মাধ্যমে ৮ দফা দাবি বাস্তবায়নের আবেদন ১১-২০ গ্রেডের কর্মচারীদের

এইচ এম জাকির ঃ আসন্ন বাজেটে মহার্ঘ ভাতা প্রদান ও নবম পে স্কেল এর মাধ্যমে ৮ দফা দাবি বাস্তবায়নের আবেদন করেছেন ১১-২০ গ্রেডের  সরকারি কর্মচারীদের সম্মিলিত অধিকার আদায় ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ।  সম্প্রতি সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব বরাবর আবেদনের মাধ্যমে ৮ দফা দাবি বাস্তবায়নের আবেদন করেন। এছাড়াও জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম বাবু এমপি এবং সরকারের প্রভাবশালী বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গের মাধ্যমে ও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি প্রদানের মাধ্যমেও ১১-২০ গ্রেডের সরকারি চাকরিজীবীদের সম্মিলিত অধিকার আদায় ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ দীর্ঘদিন যাবৎ তাদের দাবি-দাওয়া পেশ করে আসছেন। সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ লুৎফর রহমান  বলেন বিগত ২০১৫ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তিক অষ্টম পে স্কেল ঘোষণার ফলে ১১-২০ গ্রেডের চাকরিজীবীদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধি ও সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে বলেন তাঁর সুযোগ্য কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে যেভাবে অগ্রসরমান হচ্ছে তাতে অতি দ্রুতই বাংলাদেশ উন্নত দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে  নিজেদেরকে পরিচিত করতে সক্ষম হবেন। সহ-সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন বলেন ইতিমধ্যে অষ্টম পে স্কেল ৬ বছর অতিক্রম করে ফেলেছে। বর্তমানে দ্রব্যমূল্য ও সেবা খাতের ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় কয়েক গুণ যার দরুন,১১-২০ গ্রেডের সরকারি চাকরিজীবীরা তাদের জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতে হিমশিম খাচ্ছে। বর্তমান বাস্তবতায় পরিবার-পরিজন নিয়ে ব্যয় নির্বাহ করা অসাধ্য হয়ে যাওয়ার কারণে অনেক সরকারি কর্মচারীরা মানবেতর জীবনযাপন করতে বাধ্য হচ্ছে। সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান বলেন ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক গঠিত বেতন বৈষম্য দূরীকরণ সংক্রান্ত কমিটি,  মন্ত্রিসভার বিভিন্ন মন্ত্রীবর্গ সহ, বিভিন্ন কমিটি এবং সংসদ সদস্যদের মাধ্যমে বিষয়টি অবহিত করা সত্যেও অদ্যাবধি কার্যকর কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। মন্ত্রিপরিষদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ এবং বিভিন্ন সংসদীয় কমিটির কাছে কর্মচারীদের দাবি-দাওয়া সংক্রান্ত বিষয়গুলো নিয়ে বিভিন্ন সময়ে আলাপ আলোচনা করা হয়, তারাও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেননি। সকলেই সাধারণ কর্মচারীদের সমস্যা দাবিদাওয়াগুলো নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের আশ্বাস প্রদান করেন। ইতিমধ্যেই করণা মহামারীর কারণে দ্রব্যমূল্য সহ সামাজিক ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়ার দরুন সরকারি কর্মচারীরা খুবই নিদারুণ কষ্ট এবং মানবেতর ভাবে জীবনযপন করতে বাধ্য হচ্ছে। বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে মহান জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা বিরোধীদলীয় উপনেতা সহ সরকার দলীয় ৩ জন সংসদ সদস্যের মাধ্যমে দাবিদাওয়াগুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। ১১-২০ গ্রেডের সরকারি চাকরিজীবীদের সম্মিলিত অধিকার আদায় ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ আসন্ন ২০২১-২০২২ সালের অর্থ বাজেটে মহার্ঘ ভাতা প্রদান ও নবম পে স্কেল গঠনের মাধ্যমে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি সহ ১১-২০ গ্রেডের সরকারি কর্মচারীদের ৮ দফা দাবির যৌক্তিকতা তুলে ধরে অতি দ্রুত দাবিগুলো বাস্তবায়ন করার আবেদন জানান।